প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে উচ্চ মাধ্যমিকেও কাজে দিচ্ছে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ

নিউজ ডেস্ক: পয়লা এপ্রিল থেকে শুরু হয়েছে উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষা- ২০১৯। এরই মধ্যে প্রশ্ন ফাঁসের মতো ভয়াবহতা ছাড়াই শেষ হয়েছে বেশ কয়েকটি বিষয়ের পরীক্ষা।

পরীক্ষাকে সুষ্ঠু ও সুশৃঙ্খল করতে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলা হয়েছে। যাতে কোনো ভাবেই পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো ঘটনা না ঘটে। সে লক্ষ্যে সরকার ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কঠোর পদক্ষেপে এবারের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় এখন পর্যন্ত প্রশ্ন ফাঁসের মতো ঘটনা ঘটেনি।

বরাবরের মতোই এবারের পরীক্ষাতেও প্রশ্ন ফাঁসের মতো অপতৎপরতা প্রতিহত করতে মাঠ পর্যায়ে কড়া নজরদারি অব্যাহত রাখা হয়েছে। সরকারের নির্দেশ মোতাবেক শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে শুরু করে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে এবারও শিক্ষা মন্ত্রণালয়, আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয়-সাব কমিটি ও শিক্ষা বোর্ডগুলোর নতুন গৃহীত পদক্ষেপের আওতায় প্রশ্নপত্র প্যাকেজিংয়ে অ্যালুমিনিয়াম ফয়েলের ব্যবহারসহ একাধিক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা চালু হয়েছে। যাতে প্রশ্ন ফাঁসের মতো কোনো ঘটনা ঘটানোর সুযোগ পাচ্ছে না দুষ্কৃতিকারীরা।

এদিকে বিগত সময়ের ন্যায় এইচএসসি পরীক্ষাতেও সারাদেশ থেকে প্রশ্ন ফাঁস চক্রের বেশ কিছু সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে বাহিনীর সদস্যরা বলছেন, বিগত সময়ের তুলনায় চক্রের সদস্যদের আনাগোনা কম। পাশাপাশি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বেশকিছু নিয়মে পরিবর্তন আনায় প্রশ্নপত্র ফাঁস থেকে শুরু রোধ এবং গুজবেও ভাটা পড়েছে।

চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস ও গুঞ্জন রোধে সফলতায় সরকারের পদক্ষেপগুলো প্রশংসিত হচ্ছে। প্রশ্নপত্র ডিজাইন, প্রশ্নপত্র বিতরণে ডিজিটাল সিস্টেম ব্যবহারসহ শিক্ষা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপর নিয়মিত মনিটরিং করায় এ বিষয়ে সজাগ ভূমিকা পালন করছে সকলে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকার ও মন্ত্রণালয়ের গৃহীত পদক্ষেপগুলো কাজে আসায় এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নজরদারির কারণে প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজব ও কলঙ্ক থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব হচ্ছে। আগামীতেও নজরদারি অব্যাহত রাখা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *