অসুস্থ শিমুল বিশ্বাসকে দেখতে যায়নি বিএনপি নেতারা, পরিবারের ক্ষোভ

নিউজ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী সদ্য কারামুক্ত শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস অসুস্থ। ৮ মে (বুধবার) রাতে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিমুল বিশ্বাসের ভাতিজা সাইফুর রহমান। কিন্তু জরুরি ভিত্তিতে হাসপাতালে ভর্তি হলেও খবর পেয়ে বিএনপির কোনো নেতাই তাকে দেখাতে যাননি।

এ নিয়ে শিমুল বিশ্বাসের পরিবারের সদস্যরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। শিমুল বিশ্বাসের ভাতিজা সাইফুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন কারাভোগের পর আমার চাচা শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর দিনরাত পার্টির জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছিলেন। কারাগারে থাকাকালীন সময়ে নেতা ও আইনজীবীদের অসহযোগিতার কথা তিনি কেবল দলনেত্রী খালেদা জিয়ার কথা বিবেচনা করে মনে রাখেননি। এরইমধ্যে বুধবার হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে চাচাকে ঢাকা কমিউনিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অথচ একটি রাত পার হয়ে গেছে বিএনপি কোনো নেতাই চাচার খবর নেননি। শুধু বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান চাচা একবার এসেছিলেন। শিমুল চাচার সঙ্গে দেখা করে গেছেন।

সাইফুর রহমান আরও বলেন, এর আগে চাচা কারাগারে থাকাকালীন সময়েও বিএনপির শীর্ষ নেতারা চাচার জামিনে কোনো গুরুত্বই দেখাননি। পরে আমাদের পরিবারের তরফ থেকে অন্য আইনজীবী ধরে চাচাকে কারামুক্ত করেছি।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘ ১৫ মাস কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে শিমুল বিশ্বাস নিজেই অভিযোগ করেন, কারাগারে থাকাকালীন সময়ে বিএনপি কোনো শীর্ষ নেতারা তার সঙ্গে দেখা করতে যাননি। এমনকি আইনজীবীদের দ্বারা সহযোগিতার আশ্বাস দেয়া হলেও পরে সে কথা রাখা হয়নি। আইনজীবীরা তার জামিন নিয়ে কোনো পদক্ষেপই নেননি। এমনকি নেতাদের সঙ্গে শিমুল বিশ্বাসের পরিবার দেখা করলেও কেবল আশ্বাস দিয়ে সটকে পড়েছেন। পরে তার পরিবারের নিজের উদ্যোগে আলাদা আইনজীবীর মাধ্যমে তাকে জামিনে মুক্ত করা হয়েছে। যদি পরিবার তার মুক্তি নিয়ে কোনো উদ্যোগ না নিতেন তবে খালেদা জিয়ার মতো তারও কারাবাস দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হতো।

এমন বাস্তবতায় রাজনৈতিক মহলে বিএনপির সমালোচনার মাত্রাটা আরও একটু বাড়িয়ে দিলো অসুস্থ শিমুল বিশ্বাসকে নেতাদের দেখতে না যাওয়া, খোঁজ-খবর না নেয়া। শিমুল বিশ্বাসের পরিবারের সদস্যরা বলছেন, এ যাবত কালে শিমুল বিশ্বাস ও আমাদের পরিবার যে বিএনপি সমর্থন করেছি তা ভাবতেই অবাক লাগছে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *