প্লানেট ৫০-৫০ অর্জনের জন্য নারীর ক্ষমতায়নের পূর্ণ বাস্তবায়ন অপরিহার্য : জাতিসংঘে স্পিকার

নিউইয়র্ক থেকে শিব্বীর আহমেদ : “বৈশ্বিকভাবে লিঙ্গসমতা নিশ্চিতকল্পে গৃহীত প্লাটফর্ম ‘প্লানেট ৫০-৫০’ অর্জনের জন্য নারীর ক্ষমতায়নের পূর্ণ বাস্তবায়ন অপরিহার্য” -আজ জাতিসংঘ সদরদপ্তরে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি মিজ্ মারিয়া ফার্নান্দে এসপিনোসা গার্সেজ এর আহ্বানে ‘টেকসই বিশ্বের জন্য লিঙ্গসমতা ও নারী নেতৃত্ব’ শিরোনামে অনুষ্ঠিত লিঙ্গসমতা বিষয়ক বৈশ্বিক নেতাদের অনানুষ্ঠানিক সভায় ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য লিঙ্গসমতা ও একীভূত সমাজ’ শীর্ষক প্যানেল আলোচনায় অংশ নিয়ে একথা বলেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

স্পিকার তাঁর বক্তৃতায় লিঙ্গসমতা অর্জনে বিশ্বনেতাদের করণীয় সমন্ধে আলোকপাত করেন। তিনি বলেন, “ক্ষমতা-কাঠামো পরিবর্তন করতে হবে। এজন্য সংসদ সদস্য হিসেবে আমাদের যে ক্ষমতা রয়েছে তা ব্যবহার এবং ইতোপূর্বে যে কথা বলা হয়ে ওঠেনি তা বলতে হবে। আর সে সময় এখনই। আসুন, আমাদের প্রতিশ্রুতিসমূহকে বাস্তবে রূপ দেই। আসুন, বাধা হিসেবে যে কাচের দেওয়াল রয়েছে তা ভেঙ্গে ফেলে লিঙ্গসমতা অর্জনের পথ মজবুত করি। আসুন, প্লানেট ৫০-৫০ অর্জন করি যা আজ সময়ের দাবী”।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশে লিঙ্গসমতা অর্জন ও নারীর ক্ষমতায়নে গৃহীত জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি, অতিদরিদ্র নারীদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী সৃষ্টি, বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা নারীদের ভাতা, প্রসূতি ও দুগ্ধদানকারী নারীদের ভাতা, খাদ্য নিরাপত্তা কর্মসূচি, নারী উদ্যোক্তাদের জন্য জামানতবিহীন ঋণ, পেশা উন্নয়ন ও তথ্য-প্রযুক্তিগত প্রশিক্ষণ, নারী শিক্ষা উন্নয়নে ভাতা, নারীর বিরূদ্ধে সহিংসতা রোধসহ যে সকল পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করা হয়েছে তা তুলে ধরেন স্পিকার।

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, “বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ নারী ক্ষমতায়নের প্রকৃষ্ট উদাহরণ। সংসদ নেতা ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নারী। স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার, সংসদ উপনেতা ও বিরোধীদলীয় উপনেতাও নারী। নারীদের জন্য সংরক্ষিত রয়েছে ৫০টি আসন। আর ২৩ জন নারী সংসদ সরাসরি ভোটে নির্বাচিত। সামরিক বাহিনী, প্রশাসন, পুলিশ, আইন ও বিচার বিভাগীয় প্রতিষ্ঠানসহ সকল ক্ষেত্রেই রয়েছে নারীর ক্ষমতায়ন। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে বাংলাদেশের নারীরা কাজ করছেন। দেশে ৪০ লাখেরও বেশি নারী তৈরি পোশাক শিল্পে কাজ করছে যা লিঙ্গসমতার উজ্জ্বল উদাহরণ”।

স্পিকার আরও বলেন, “নারীরা এগিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের প্রথাগত ধারণা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আর তাহলেই লিঙ্গসমতা আনা সম্ভব”। নারীদের প্রতি সহিংসতা রোধে এবং নারী ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে বৈশ্বিক পদক্ষেপসমূহকে আরও শক্তিকশালী করার উপর জোর দেন বাংলাদেশের স্পিকার। সকালে সভার উদ্বোধনীতে ভাষণ দেন জাতিসংঘের ৭৩তম সাধারণ পরিষদের সভাপতি মিজ্ মারিয়া ফার্নান্দে এসপিনোসা গার্সেজ, জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল মিজ্ আমিনা জে. মোহাম্মদ ও ইকোসকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোনা জুল ।

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য লিঙ্গসমতা ও একীভূত সমাজ’ শীর্ষক প্যানেল আলোচনার অন্যান্য প্যানেলিষ্টগণের মধ্যে ছিলেন অ্যঙ্গোলার ফার্স্ট লেডি অ্যানা আফোনসো ডায়াস লাওরেনকো, আইএলও’র মহাপরিচালক গাই রাইডার, মেক্সিকোর ভাইস ফরেন মিনিস্টার মিজ্ মার্থা ডেলগোডো। প্যানেল আলোচনা পরিচালনা করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত রুয়ান্ডার স্থায়ী প্রতিনিধি মিজ্ ভ্যালেনটাইন রূগওয়াবিজা।

এদিকে বিকালে স্পিকার জাতিসংঘ সদরদপ্তরে এইচএলপিএফ এর পার্লামেন্টারি ফোরাম আয়োজিত “ক্রমবর্ধমান অসমতা ও সরকারের প্রতি আস্থাহীনতা: হীন চক্র ভেঙ্গে ফেলা শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন। অনুষ্ঠানটির আলোচক হিসেবে প্রদত্ত বক্তব্যে স্পিকার বলেন “অসমতার দুষ্টচক্র ভেঙ্গে ফেলতে হলে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ অর্জন করতে হবে। অসমতা দূর করার ক্ষেত্রে সংসদ সদস্যদের দায়বদ্ধতা রয়েছে”। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রান্তিক এলাকাসমূহের মানুষের যে সকল অসমতা রয়েছে তা দূর করার উপর জোর দেন স্পিকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকার গত প্রায় দু’দশক ধরে নিজস্ব রাজস্ব বাজেট থেকে অতিদারিদ্র মানুষের জন্য নিরাপত্তা বেষ্টনী সৃষ্টি, বয়স্ক ও বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, প্রসূতি ও দুগ্ধদানকারী নারীদের ভাতা, ভিজিএফ, দশ টাকায় ব্যাংক অ্যকাউন্ট খোলাসহ নানা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে যা প্রান্তিক এলাকার মানুষের অসমতা দূর করার ক্ষেত্রে যুগান্তকারী ভূমিকা রেখেছে। এর ফলে দারিদ্র্যের হার ৪০ শতাংশ থেকে ২১ শতাংশে এবং অতিদারিদ্র্যের হার ২৫ শতাংশ থেকে ১১ শতাংশে নেমে এসেছে। বিশ্বব্যাপী অসমতা হ্রাস ও সরকারি ব্যবস্থার উপর আস্থাহীনতা দূর করতে তিনি শিক্ষা ও প্রযুক্তিগত ব্যবধান হ্রাস করার উপর জোর দেন। এসকল ক্ষেত্রে নিজ নিজ এলাকার অসমতা চিহ্নিত করে তা দূর করতে সংসদ সদস্যদেরকে আরও কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান স্পিকার। পার্লামেন্টারি কমিটিসমূহেরও এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রয়েছে মর্মে উল্লেখ করেন স্পিকার।

ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়ন (আইপিইউ) এর সভাপতি মিজ্ গ্যাব্রিয়েলা কুইভাস ব্যারন এ সভায় উদ্বোধনী বক্তব্য প্রদান করেন। অন্যান্য আলোচকগণ হলেন ইউএনডিপির মানব উন্নয়ন রিপোর্ট অফিসের পরিচালক পেড্রো কনসিওকাও এবং হাঙ্গেরির সংসদ সদস্য ড. এরসিবেত স্কমুখ। দিনব্যাপী এই আলোচনা অনুষ্ঠানসমূহে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এবং জাতীয় সংসদের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান।

নিউইয়র্কে নতুন সংগঠননবীগঞ্জ ইউনাইটেড ইউএসএ ইনক আত্মপ্রকাশ

নিউইয়র্ক: নিউইয়র্কে “নবীগঞ্জ ইউনাইটেড ইউএসএ ইনক” নামে নতুন একটি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। দেশে-প্রবাসে নবীগঞ্জবাসীর সার্বিক কল্যাণে সহযোগিতা প্রদানের লক্ষে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী নবীগঞ্জবাসী এ সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন বলে জানান হয়। ব্রঙ্কসের স্টারলিং-বাংলাবাজার এলাকার আল আকসা পার্টি হলে গত ১৫ জুলাই সোমবার রাতে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী নবীগঞ্জবাসীর এক সাধারণ সভায় নয়া সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা ও কার্যকরী কমিটি গঠনের ঘোষণা দেয়া হয়।প্রবীণ কমিউনিটি লিডার আবদুল বাছির খানের সভাপতিত্বে এবং ফয়জুল ইসলাম চৌধুরী নয়নের পরিচালনায় এ সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আবদুল হক চৌধুরী, শাব্বীর কাজী আহমেদ, মোহাম্মদ দুদু মিয়া প্রমুখ।

২১ সদস্যের নতুন কমিটির কর্মকর্তারা হলেন : সভাপতি মোহাম্মদ দুদু মিয়া, সিনিয়র সহ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সহ সভাপতি খারছু আহমেদ ও সৈয়দ আবদুল মুহিত, সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল ইসলাম চৌধুরী নয়ন, সহ-সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল বাছির খান, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ শামসুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক আবু হানিফ, দপ্তর সম্পাদক মঈনুল হক চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক মিজানুল হক খান, সমাজকল্যাণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান সরদার, ক্রীড়া সম্পাদক শাহ বেলাল আহমদ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক সুহুল আহমদ, মহিলা সম্পাদিকা গোলশান আক্তার; কার্যকরী সদস্য জাকিরুল হক চৌধুরী সুমন, মুহিবুর রহমান, খায়রুল ইসলাম, শাহীন আহমেদ চৌধুরী, গোলাম হোসেন ও সিদ্দিক সাফু।

বক্তারা বলেন, প্রবাসে নবীগঞ্জবাসীর মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ সুদৃঢ়, পরস্পর সহযোগিতা প্রদান, সামাজিক কর্মকান্ড, নতুন প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের উপযোগি কর্মসূচি গ্রহণ সহ নবীগঞ্জ উপজেলাবাসীর সার্বিক উন্নয়নে নয়া সংগঠনটি প্রয়াস চালাবে।নব নির্বাচিত সভাপতি মোহাম্মদ দুদু মিয়া এবং সাধারণ সম্পাদক ফয়জল ইসলাম চৌধুরী নয়ন ঐক্যবদ্ধভাবে নতুন সংগঠনটিকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে সকলের সার্বিক সহযোগিতা ও দোয়া কামনা করেন। তাদের নতুন সংগঠনের দায়িত্ব প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তারা। সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নিষ্ঠার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালনের অঙ্গীকার করে বলেন, প্রবাস ও দেশে নবীগঞ্জবাসীর যেকোনো প্রয়োজনে সংগঠনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানই হবে তাদের প্রধান লক্ষ। নতুন ইমগ্র্যান্টদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদানেও সচেষ্ট থাকবে এ নয়া কমিটি।

বক্তারা নতুন কমিটিকে শুভেচ্ছা জানিয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। তারা নবনির্বাচিত কমিটিকে ঐক্যবদ্ধভাবে জনকল্যানমূলক কর্মসূচি গ্রহণের আহ্বান জানান। সভায় নতুন সংগঠনের সাফল্য, দেশ, প্রবাস ও বিশ্ব মানবতার কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মুনাজাত করা হয়। মুনাজাত পরিচালনা করেন শাব্বীর কাজী আহমেদ। কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গসহ বিপুল সংখ্যক প্রবাসী নবীগঞ্জবাসী এসময় উপস্থিত ছিলেন।

নিউইয়র্কে সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি ইউএসএ বনভোজন

নিউইয়র্ক : সুনামগঞ্জ সহ দেশে বন্যার্তদের সাহায্যার্থে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বানের মধ্য দিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশের অনুষ্ঠিত হয়েছে সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি ইউএসএ ইনক্’র বার্ষিক বনভোজন। গত ১৪ জুলাই রোববার অনুষ্ঠিত এ বনভোজনে নিউইয়র্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেটে বসবাসরত সুনামগঞ্জ জেলার নারী-পুরুষ-শিশু-কিশোররা দিনভর প্রাকৃতিক সোৗন্দর্যমন্ডিত নিউইয়র্কের এস্টেরিয়া পার্কের খোলা মাঠে খেলাধুলাসহ নানা আনন্দে মেতে ওঠেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান, এমপি। বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে সুনামগঞ্জ ছাড়াও বৃহত্তর সিলেটের বিপুল সংখ্যক প্রবাসী যোগ দেন। সুনামগঞ্জ প্রবাসীদের মিলন মেলায় পরিনত হয় এই বনভোজন।

সুনামগঞ্জ জেলা সমিতির সভাপতি মো. জুসেফ চৌধুরীর সভাপতিত্বে, সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুল আম্বিয়া টিপুর পরিচালনায় এবং বনভোজন কমিটির আহ্বায়ক মনির উদ্দিন, প্রধান সমন্বয়কারি ছদরুন নূর, যুগ্ম আহ্বায়ক মানিক আহমেদ এবং সদস্য সচিব মান্না মুনতাসিরের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সেইফ হেলথ মেডিকেল কেয়ারের কর্ণধার ডা. মো. হেলাল উদ্দিন, সুনামগঞ্জ জেলা সমিতির উপদেষ্টা ইকবাল আহমেদ মাহবুব, সমিতির উপদেষ্টা ও স্টারলিং-বাংলাবাজার বিজনেস এসোসিয়েশন এবং বাংলাবাজার জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন, সমিতির উপদেষ্টা ও বাংলাবাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবুল কাশেম এয়াহইয়া, সমিতির উপদেষ্টা নুরুজ্জামান শাহী, রাবেয়া মালিক, আজমল আলী ও তোফায়েল আহমদ চৌধুরী, আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনকের প্রেসিডেন্ট আবদুস শহীদ ও সহ সভাপতি এডভোকেট নাসির উদ্দিন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, জাতীয় পার্টীর নেতা আবদুন নূর বড় ভূইয়া ও আলতাফ হোসেন, ছাতক সমিতির সভাপতি মো: আবদুল খালেক, লংজিভিটি হেলথ সার্ভিসের কর্ণধার রুকন হাকিম, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট শামিম আহমেদ, জামাল আহমেদ, মাওলানা শিহাব সহ কবি, লেখক, সাংবাদিক ও কমিউনিটি নের্তৃবৃন্দ।

আয়োজকরা জানান, বিপুল সংখ্যক সুনামগঞ্জবাসী এ বনভোজনে অংশ নেন। এদিন প্রবাসীরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত বনভোজন স্থলে এসে সমবেত হন সকাল থেকেই। উপভোগ করেন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। মেতে ওঠেন নানা আলাপচারিতায়। বনভোজনে বিভিন্ন বয়সী ছেলে-মেয়েদের জন্য ছিল খেলাধূলার আয়োজন। মহিলাদের জন্যও ছিল বিশেষ আয়োজন। সবশেষে অনুষ্ঠিত হয় বনভোজনের অন্যতম আকর্ষণ র‌্যাফেল ড্র। এতে পুরষ্কার ছিল নানা মূল্যবান সামগ্রী। শেষে খেলাধুলায় অংশগ্রহণকারি এবং র‌্যাফেল ড্র বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে দেশ সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নানকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

বনভোজনে পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মকান্ডের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে বলেন, সুনামগঞ্জ সহ সিলেটে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ চলছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রাখছে প্রবাসীরা। প্রবাসীবান্ধব সরকারও প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষায় সদা সচেষ্ট। পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ, মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে, শান্তিতে আছেন সবাই।বিপুল সংখ্যক সুনামগঞ্জবাসী ও কমিউনিটির নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানে সভাপতি মো. জুসেফ চৌধুরী প্রবাসী সুনামগঞ্জবাসীসহ আমন্ত্রিত অতিথিদের স্বাগত জানিয়ে বলেন, সকলের সার্বিক সহযোগিতায় আজকের এই বনভোজন সুন্দর ও সফল হয়েছে। বনভোজনে সহযোগিতাকারীদের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, একটি বৃহৎ পরিবারের মত সম্প্রীতি ও সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সুনামগঞ্জবাসীর প্রিয় এই সংগঠন। সংগঠনকে আরো এগিয়ে নিতে তিনি সকলের সার্বিক সহযোগিতা, পরামর্শ ও দো’য়া কামনা করেন।

অন্যান্য বক্তারা দেশে ও প্রবাসে সুনামগঞ্জবাসীর কল্যাণে কাজ করার দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। তারা সুনামগঞ্জ তথা দেশের উন্নয়নে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্ববান জানান। সুনামগঞ্জের বন্যার্তদের সাহায্যার্থে সকলকে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান হয় বনভোজন থেকে। র‌্যাফেল ড্র প্রাইজ স্পন্সরদের মধ্যে ছিল : ১ম প্রাইজ জমজম ড্রাগ ফার্মেসী, ২য় প্রাইজ আহাদ আলী সিপিএ, ৩য় প্রাইজ হামজা কোরেসী, ৪র্থ প্রাইজ হাকিম অ্যান্ড কো. এাল্টি সার্ভিস, ৫ম প্রাইজ মো. নুরুল হক, ৬ষ্ঠ প্রাইজ লিখন ভূইয়া, ৭ম প্রাইজ ফয়সাল আহমেদ, ৮ম প্রাইজ ইউনাইটেড ট্র্যাভেলস এবং ৯ম প্রাইজ জুলি আকতার।

বনভোজনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন সংগঠনের সভাপতি মো. জুসেফ চৌধুরী, সহ সভাপতি মো: মনির উদ্দিন আহমেদ, মো: আবদুল আজিজ, আবু সালেহ চৌধুরী ও নুরুল হক, সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুল আম্বিয়া টিপু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূন কবির সোহেল, কোষাধ্যক্ষ এফ রহমান কামাল, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, প্রচার সম্পাদক হামজা কোরেশী, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মো. কয়েস খান, ক্রীড়া ও আপ্যায়ন সম্পাদক এমডি এম কবির, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আবদুল আউয়াল, আইন ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক অধ্যাপক আমিনুল হক চুন্নু, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক রেহানা নূর, দপ্তর সম্পাদক মো: শুকুর আলী, কার্যকরী সদস্য : আফতাব আলী, আজিজুর রহমান রানা, মানিক আহমেদ, আলী রেজা, হাবিবুর রহমান, হোসেন আহমেদ, মান্না মুনতাসির, রুমেল হোসেন, কয়ছর আহমেদ, আবদুর রউফ, ইমতিযাজ আহমেদ বেলাল, আলাউদ্দিন আহমেদ, রাসেল মিয়া, আবু সাদিক ও রওশন আরা বেগম। অনুষ্ঠানের স্পন্সর ছিল সিলেট মটর, সেইফ হেলথ মেডিকেল কেয়ার, লংজিভিটি হেলথ সার্ভিস, জমজম ফার্মেসী, আহাদ আলী সিপিএ, ওয়াসী চৌধুরী, ইউনাইটেড অটো রিপেয়ার এবং ইউনিভার্সেল ট্র্যাভেলস।

প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষায় সরকার সচেষ্ট: নিউইয়র্কে বর্ণাঢ্য সংবর্ধনায় পরিকল্পনা মন্ত্রী

নিউইয়র্ক : নিউইয়র্কে বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান, এমপিকে গণ সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে গত ১৩ জুলাই শনিবার। মন্ত্রী এমএ মান্নানের যুক্তরাষ্ট্রে আগমন উপলক্ষে তার সম্মানে এ সংবর্ধনার আয়োজন করে আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনক এবং যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলাবাসী। শনিবার সন্ধ্যায় ব্রঙ্কসের ১৩১৫ ওলমস্টেড এভিনিউর সেইন্ট হেলেনা চার্চের হল রুমে এ সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষায় সরকার সচেষ্ট রয়েছে বলে তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক ও আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনকের প্রেসিডেন্ট আবদুস শহীদের সভাপতিত্বে এবং আয়োজক কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী জামাল হুসেন ও যুগ্ম সদস্য সচিব শাহিন কামালীর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নিউইয়র্ক স্টেট সিনেটর লুইস সিপুলভেদা, নিউইয়র্ক বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুন্নেছা, জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা’র সভাপতি বদরুল হোসেন খান, কুইন্স ডেমোক্রেটিক পার্টির ডিস্ট্রিক্ট লিডার এট লার্জ এটর্নি মঈন চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ড. প্রদীপ রঞ্জণ কর, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এমএ সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ (উপজেলা চেয়ারম্যান), আব্দুর রহিম বাদশা ও মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মিসবাহ আহমেদ, অয়েল কেয়ার হেলথ প্ল্যানের সিনিয়ার ম্যানেজার সালেহ আহমেদ, স্টারলিং-বাংলাবাজার বিজনেস এসোসিয়েশন এবং বাংলাবাজার জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ গিয়াস উদ্দিন, বাংলাদেশী-আমেরিকান কমিউনিটি কাউন্সিলের সভাপতি মোহাম্মদ এন মজুমদার, আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনকের সহ সভাপতি রফিকুল ইসলাম ও এডভোকেট নাসির উদ্দিন, আয়োজক কমিটির উপদেষ্টা ছদরুন নূর, ইকবাল আহমেদ মাহবুব, আবদুল মুহিত ও জুসেফ চৌধুরী, যুগ্ম আহ্বায়ক একে এম রহমান কামাল ও মির্জা রশিদ মামুন, সদস্য সচিব জামাল আহমেদ, সদস্য আমিনুল হক চুন্নু, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ সোহাগ, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট এক্লিমুজ্জামান নুনুই, হাসান আলী, নূরে আলম জিকু, এডভোকেট আলাউদ্দিন সহ কমিউনিটির নের্তৃবৃন্দ। পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন বাংলাবাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবুল কাশেম এয়াহইয়া।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এমএ মান্নানকে নিউইয়র্ক স্টেট সিনেট ও সিটি কাউন্সিল প্রক্লেমেশন প্রদান করা হয়। স্টেট সিনেটর লুইস সিপুলভেদা মন্ত্রী এমএ মান্নানের হাতে প্রক্লেমেশন তুলে দেন। এছাড়াও আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনকের পক্ষ থেকে মন্ত্রীকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। আয়োজক সহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান হয় সংবর্ধিত অতিথিকে। পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান, এমপিকে মানপত্রও প্রদান করা হয়। মানপত্রটি পাঠ করেন আয়োজক কমিটির সদস্য শামীম আহমেদ। এর আগে সজ্জন রাজনীতিক হিসেবে পরিচিত পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান অনুষ্ঠান হলে এসে পৌঁছালে তাকে স্বাগত জানান আয়োজক কমিটির নের্তৃবৃন্দ।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলাবাসী সহ বাংলাদেশী কমিউনিটির বিপুল সংখ্যক প্রবাসী সংবর্ধনা সভায় যোগ দেন। সভায় পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান তার বক্তব্যে বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মকান্ডের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরেন। তিনি এসময় সিলেট বিমান বন্দর থেকে সরাসরি ফ্লাইট চালু, নিজ এলাকাসহ বৃহত্তর সিলেটের উন্নয়ন কর্মকান্ডসহ অন্যান্য বিষয়ও উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রয়েছে প্রবাসীদের। সব সময় প্রবাসী বাংলাদেশীরা সহযোগিতা করে আসছে। সরকারও প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষায় সচেষ্ট রয়েছে।

এসময় মন্ত্রী বলেন, দেশের সার্বিক উন্নয়নের মাধ্যমে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছাতে নিরলসভাবে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি সরকারের নানামুখি উন্নয়নের কর্মকান্ড তুলে ধরে বলেন, গণতান্ত্রিক সুশাসন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, অর্থনীতি, তথ্যপ্রযুক্তি, যোগাযোগ ব্যবস্থায় বিস্ময়কর উন্নতি বাংলাদেশকে আজ একটি নি¤œমধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরীত করেছে। যা আগামী ২০২১ এ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ এ উন্নত দেশের তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করবে। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল উল্লেখ করে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এবং এগিয়ে যাবে। দেশে খাদ্যের অভাব নেই, মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে, সবাই শান্তিতে আছেন।

তিনি বলেন, সিলেট থেকে সরাসরি বিমান ফ্লাইট চালুর কাজ চলছে। বিমান উড়তে গেলে যে রানওয়ের প্রয়োজন সেটি এখনও তৈরী হয়নি সিলেটে। তাছাড়া সিলেট থেকে জ্বালানি সংগ্রহের ব্যবস্থাও প্রয়োজন। একাজগুলো সম্পন্ন হলেই, সিলেট থেকে সরাসরি উড়বে বিমানের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। বিমানের ঢাকা-নিউইয়র্ক ফ্লাইট চালুর বিষয়েও সরকারের প্রচেষ্টা রয়েছে। সিলেটে সড়ক উন্নয়নে ব্যাপক কাজ চলছে বলেও তিনি তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

নিউইয়র্কে এনজিএফএফ স্কুল এলামনাই এসোসিয়েশন অব আমেরিকার বর্ণাঢ্য বনভোজন অনুষ্ঠিত

নিউইয়র্ক : নিউইয়র্কে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও আনন্দঘন পরিবেশের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রবাসের অন্যতম সামাজিক সংগঠন এনজিএফএফ স্কুল এলামনাই এসোসিয়েশন অব আমেরিকার ইনক্’র বার্ষিক বনভোজন। গত ১৪ জুলাই রোববার ব্যতিক্রমী এ বনভোজনে যুক্তরাষ্ট্রে  বসবাসরত এনজিএফএফ স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের আত্মীয় স্বজনরা দিনভর এস্টেরিয়া পার্কের খোলা মাঠে খেলাধুলাসহ নানান আনন্দ উপভোগ করেন। মেতে উঠেছিলেন বর্ণাঢ্য সব আয়োজনে। এনজিএফএফ স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের মিলন মেলায় পরিনত হয় এ বনভোজন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান, এমপি।

এনজিএফএফ স্কুল এলামনাই এসোসিয়েশন অব আমেরিকার ইনক্’র সভাপতি সফিউল ইসলাম বাবলুর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী মুনির ও সহ সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রহমান কিবরিয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এনজিএফএফ স্কুলের প্রাক্তন শিক্ষক লুৎফর রহমান ও দেলোয়ার হোসেন, স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রী ডা. শাহানারা আলী, স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, স্টারলিং-বাংলাবাজার বিজনেস এসোসিয়েশন এবং বাংলাবাজার জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন, আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনকের প্রেসিডেন্ট আবদুস শহীদ, জাতীয় পার্টীর নেতা আবদুন নূর বড় ভূইয়া ও আবদুর রহমান, আওয়ামীলীগ নেতা মিসবাহ আহমেদ, শেখ আতিকুল ইসলাম, জুনেদ এ খান, শাহাদত হোসেন, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট সিরাজ উদ্দিন আহমেদ সোহাগ, মো. এনামুল হক, গোলাম কিবরিয়া, এহসান হাবিব, মো. হেলিম উদ্দিন সহ কমিউনিটি নের্তৃবৃন্দ। নিউইয়র্ক, নিউজার্সী, কানেটিকাট, মিশিগান সহ যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেট থেকে এনজিএফএফ স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীরা এ বনভোজনে অংশ নেন।

প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে আরো ছিলেন, ডা. আনোয়ারুজ্জামান,  ডা. ফারুক, অধ্যাপক জসিম উদ্দিন আহমেদ, ইঞ্জিনিয়ার আসাদ মন্ডল, জাহানারা বেগম লক্ষী, মামুনুর রশিদ মামুন, আনিসুর রহমান আনিছ, আঙুরুন নেছা, নূর উদ্দিন, দেলোয়ার হোসেন, আমিনুর রহমান মামুন, ফেরদৌসী বেগম বিউটি, নিলুফা বেগম, অমর চাঁদ, ডাবলু, তপু, খসরু, ফাহমিদা হাবিব লবি, স্বপ্না, মনোয়ারা বেগম, জহুরা চৌধুরী সাবিন, মহিম, নেলি, শওকত, পান্না, পলি, চাঁদনী, নেওয়াজ, মোহাম্মদ রহমান বাবলু, রোজি ফারহানা, বিলকিস, নীলু প্রমুখ।

স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র আব্দুর রহিম বাদশার পরিচালনায় পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মকান্ডের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রয়েছে প্রবাসীদের। এনজিএফএফ স্কুল এলামনাই এসোসিয়েশন অব আমেরিকার ইনক্’র বনভোজনে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান তিনি। অনুষ্ঠানে সংগঠনের পক্ষ থেকে পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নানকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। এসময় আয়োজকদের পক্ষ থেকে এনজিএফএফ স্কুলের বিশেষ টি শার্ট উপহার প্রদান করা হয় মন্ত্রীকে। অনুষ্ঠানে সংগঠনের কর্মকর্তা ও অন্যান্য অতিথিরাও বক্তব্য রাখেন।

বনভোজনে বিভিন্ন বয়সী ছেলেমেয়েদের জন্য আয়োজন করা হয় খেলাধূলার। মহিলাদের জন্যও ছিল বিশেষ আয়োজন। সবশেষে আয়োজন করা হয় বনভোজনের অন্যতম আকর্ষণ র‌্যাফেল ড্র। এতে পুরষ্কার হিসাবে ছিল বিভিন্ন মূল্যবান সামগ্রী। শেষে খেলাধুলায় অংশ গ্রহণকারি এবং র‌্যাফেল ড্র বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। র‌্যাফেল ড্রর প্রথম পুরস্কার ছিলো ৫৫ ইঞ্চি টিভি। জসিম উদ্দিন নীপুর সৌজন্যে দেয়া এ পুরস্কারটি পান মামুন, আল আকসার সৌজন্যে দেয়া দ্বিতীয় পুরস্কার ৪২ ইঞ্চি টিভি পান ফাতিমা এবং তৃতীয় পুরস্কার মাইক্রো ওভেন বিজয়ী হন নিপু। সবশেষে আয়োজকদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলা হয়, সকলের সার্বিক সহযোগিতায় এই অনুষ্ঠান সফল হয়েছে।

সেপ্টেম্বর মাসে নিউইয়র্কে তিন দিন ব্যাপী বঙ্গবন্ধু বই মেলা২০১৯

নিউইয়র্ক : আগামি প্রজন্মের কাছে মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও ইতিহাস সঠিক ভাবে তুলে ধরার প্রয়াসে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে তিন দিন ব্যাপী ‘বঙ্গবন্ধু বই মেলা-২০১৯’ । বইমেলা উপলক্ষে ১৪ই জুলাই রবিবার সন্ধ্যা ৭টায় জ্যাকসন হাইটসের তিতাস পার্টি হলে  লেখক ও মুক্তিযোদ্ধা ড. নুরন নবী কে প্রধান উপদেষ্টা, কবি মিশুক সেলিম কে আহ্বায়ক, মুজিব সৈনিক নুরুল আমিন বাবু কে সদস্য সচিব করে নিউইয়র্কের প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক কর্মী, লেখক, ছড়াকার, চিকিৎসক, মুক্তিযাদ্ধা এবং মুজিব সৈনিকদের নিয়ে একটি আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, প্রধান সমন্বয়কারী লেখক আবু রায়হান, সদস্য সচিব নুরুল আমিন বাবু, যুগ্ম সদস্য সচিব নাট্যকর্মী শিবলী ছাদেক শিবলু, সমন্বয়কারী মাসুদ হোসেন সিরাজী, যুগ্ম আহ্বায়ক ইমদাদ চৌধুরী, যুগ্ম আহ্বায়ক কামাল হোসেন মিঠু, সম্বয়কারী মাহফুজ হায়দার। আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ছড়াকার মনজুর কাদের, খালেদ শরফুদ্দিন, গোলাম মো: হাসান, মিনহাজ আহমেদ শাম্মুু, শাম্মী আখতার, ইশতিয়াক রুপু, লেখক শামসুদ্দিন আজাদ, ডা: মাসুদ হাসান, মুক্তিযোদ্ধা মোজাহিদুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা শরাফ সরকার, আওয়ামীলীগ নেতা শামসুল আবেদীন, হাজী এনাম, মুক্তিযোদ্ধা মোজাহিদ আনসারী, জেড এ জয়, জাহিদ হাসান, স্বীকৃতি বড়–য়া, খান শওকত ও মো: আলিম খান আকাশ। প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করেন সাংবাদিক আব্দুল হামীদ ও নান্টু মিয়া। আরো উপস্থিত ছিলেন সুমন মাহমুদ, আবেদা চৌধুরী, আওয়ামীলীগ নেতা সাখাওয়াত বিশ্বাস, দিদারুল ইসলাম, আলী হোসেন গজনবী, সৈয়দ সাজ্জাদ রায়হান, ফাহিম আহমেদ, শহীদুল ইসলাম রাসেল, আমিনুল ইসলাম, হেলাল মিয়া, রাসেল, হাসান, আবীর, রিপু চৌধুরী আলী, আমজাদ হোসেন ও আলী আজগর খান।

সভায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সংগ্রামী সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদসহ যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের যোগদান এবং ব্যপক সমর্থন বঙ্গবন্ধু বই মেলা-২০১৯ এর আয়োজনকে আরো সার্থক ও বেগবান করবে বলে সকল বঙ্গবন্ধু সৈনিকরা আশা পোষন করেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *