যুবলীগকে মানুষের অধিকার আদায়ের কাজ করতে হবে- নানক

বিটিবি নিউজ রিপোর্ট: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড. জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন যবলীগকে মানুষের অধিকার আদায়ের রাপথে থাকতে হবে। এমপি মন্ত্রীদের ক্যাডার থাকলে চলবেনা। ভালো নেতা হতে হবে, ভালো মানুষ হতে হবে, জ্ঞান অর্জন করতে হবে, আলোকিত মানুষ হতে হবে। যুবলীগকে মানুষের অধিকার আদায়ের কাজ করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ অর্থনৈতিকভাবে উন্নয়নশীল দেশে পরিনত হয়েছে। তিনি বিশ্বে বিজ্ঞ, প্রাজ্ঞ, মেধাবী, মানবিক, দুরদর্শী এবং কর্মঠ নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করায় জাতি হিসেবে আমরা অনেক গর্বিত হয়েছি। আগামী ৫০ বছর বাংলাদেশের কি প্রয়োজন, সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা গ্রহণ এবং সেই পরিকল্পনা বাস্তবাবায়নে দেশের প্রশাসন এবং জনগণকে কিভাবে সম্পৃক্ত করা যায় সেটাই তাঁর দর্শন। সকলকে এই দর্শন মেনে চলতে হবে।

গতকাল বৃহষ্পতিবার বিকালে নওগাঁয় স্থানীয় নওযোয়ান মাঠে আয়োজিত বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ জেলা কমিটির ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অধিবেশনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড. জাহাঙ্গীর কবির নানক এসব কথা বলেন।

যুবলীগের সাবেক নেতা এ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক যুবলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে যুবলীগ প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল বলেই বিএনপি জামাত অপশক্তির পতন ঘটেছিল। পদ দিলে শেখ হাসিনার সাথে আছি আর পদ না পেলে নাই, এই মানষিকতার নেতা দরকার নেই। নেতৃত্ব ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখার মত নেতৃত্ব আওয়ামীলীগের দরকার নেই।

নওগাঁ জেলা যুবলীগের আহবায়ক এ্যাড. খোদাদাদ খান পিটুর সভাপতিত্বে আয়োজিত সম্মেলনের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ আওয়ামীযুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুখ চৌধুরী। সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্যে যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন, সম্মেলনের মাধ্যমে কেবল নেতা নির্বাচন নয়, একটি রাজনৈতিক দলের চিন্তা চেতনা ও দিক নির্দেশনা বাস্তবায়নের অঙ্গিকার ব্যক্ত করা হয়। তিনি যুবলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন যুবলীগ একটি সংগঠন। সংগঠন মানে আন্দোলন। আর আন্দোলন না থাকলে সংগঠন শক্তিশালী হয় না। আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ গড়ার যে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন সবাইকে তার সাথে শরীক হয়ে সাবর প্রিয় দেশকে গড়ে তুলতে হবে।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশিদ এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি, শহিদুজ্জামান সরকার এমপি, ব্যারিষ্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন এমপি, ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি, নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক এমপি আব্দুল মালেক, কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শহিদ সেরনিয়াবাত ও মুজিব চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আহম্মেদ নাসিম পাভেল, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মিজানুল ইসলাম মিজু, সাবেক এমপি শাহিন মনোয়ারা হক সহ স্থানীয় নের্তৃবৃন্দ।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০৩ সালে নওগাঁ জেলা যুবলীগের সর্বশেষ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৩ সালে অ্যাডভোকেট খোদাদাদ খান পিটুকে আহ্বায়ক করে তিন মাস মেয়াদী ৩১ সদস্য বিশিষ্ট জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এ আহ্বায়ক কমিটি চলে প্রায় ছয় বছর। জেলা যুবলীগের মোট ১২টি সাংগঠনিক গ্রুপ রয়েছে। মহাদেবপুর ও পত্নীতলা উপজেলায় এখনো আহ্বায়ক কমিটি রয়েছে। প্রতিটি গ্রুপ থেকে ২৫ জন সম্মেলনে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। এছাড়া বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির ৩১ জনও ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। কাউন্সিলরের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩২৯ জন। তিনজন মারা যাওয়ায় বর্তমানে কাউন্সিলরের সংখ্যা ৩২৬ জন।

সম্মেলনের পরবর্তী পর্যায়ে নওগাঁ জেলা যুবলীগের কমিটিতে এ্যাডভোকেট মোঃ খোদাদাদ খান পিটুকে সভাপতি ও বিমান কুমার রায়কে সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *