মার্চের প্রথমার্ধে শপথ নেবেন গণফোরামের বিজয়ী প্রার্থীরা

নিউজ ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণফোরাম থেকে নির্বাচন করা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর ও মোকাব্বির খান অগ্নিঝরা মার্চের প্রথমার্ধে শপথ নেবেন বলে জানিয়েছেন। ২৭ ফেব্রুয়ারি এ দু’জন গণমাধ্যমকে তাদের শপথ গ্রহণের সময়কাল সম্পর্কে অবহিত করেছেন।

তথ্যসূত্র বলছে, গণফোরামের উদীয়মান সূর্য প্রতীক নিয়ে সিলেট-২ আসন থেকে নির্বাচন করে জয়ী হন দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খান। এছাড়া সুলতান মোহাম্মদ মনসুর গণফোরাম থেকে মনোনয়ন নিয়ে ধানের শীষ প্রতীকে মৌলভীবাজার-২ আসনে নির্বাচিত হন। শুরু থেকেই তারা শপথ নেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করে আসছেন।

শপথের বিষয়ে বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে মোকাব্বির খান বাংলা নিউজ ব্যাংক’কে একান্ত সাক্ষাৎকারে শতভাগ নিশ্চয়তা দিয়ে বলেন, ‘মার্চের প্রথমদিকে শপথ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি। বিরোধী দলীয় সাংসদ হিসেবে যতটুকু ভূমিকা রাখা যায় চেষ্টা থাকবে সবটুকু রাখার। দলের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার তো মনে হচ্ছে দলের চিন্তা ভাবনা ইতিবাচক।’

এদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট জোটবদ্ধ হওয়ার শুরু থেকে জড়িত ছিলেন সুলতান মোহাম্মাদ মনসুর। তবে শপথ নেওয়াকে কেন্দ্র করে তার সঙ্গে জোটের দূরত্ব তৈরি হয়। তারপর থেকেই তাকে ঐক্যফ্রন্টের কোনো বৈঠকে দেখা যায় না।

এ প্রসঙ্গে সুলতান মোহাম্মদ মনসুর বলেন, মার্চের ১৫ তারিখের মধ্যে শপথ নেব। আমার এলাকার জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা আছে। সেই দায়বদ্ধতার কথা মাথায় রেখেই আমাকে শপথ নিতে হচ্ছে। সবার আগে জনগণের কল্যাণের কথা ভাবতে হবে। কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের নেতারা বিএনপির ভাষায় কথা বলছেন। কেবল বিএনপির সুবিধার জন্য ঐক্যফ্রন্ট গঠন হয়নি। জাতির কল্যাণের কথা যারা ভাবতে পারে না, তাদের সাথে সম্পর্ক রাখার কোনো অর্থ হয় না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে গণফোরামের একজন নেতা জানান, শপথের ব্যাপারে এখন দল ইতিবাচক। দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে শপথ নিলে দল থেকে তারা বহিষ্কার হতে পারেন- এমন কথা নিছক গুজব ছাড়া আর কিছু নয়। দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরামের বৈঠকে শপথের বিষয়ে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন নেতারা। তবে গণফোরামের বিজয়ী প্রার্থীরা শপথ নিলে ঐক্যফ্রন্টের সাথে যে দূরত্ব সৃষ্টি হবে সে সংকট নিয়েও কৌশল নির্ধারণ করেছেন নেতারা।

এ সম্পর্কে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, ‘শপথ নেওয়ার ব্যাপারে দল মোটেও ইতিবাচক নয়- এ ধরনের কথা সত্য নয়। দলীয় সিদ্ধান্তের সাথে ঐক্যফ্রন্টের সিদ্ধান্ত মিলবেই সেরকমটি নাও হতে পারে। গণফোরাম মনে করে- শপথ না নিলে তা হবে জাতির সঙ্গে প্রতারণার শামিল। তবে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের সাথে শপথের বিষয়ে আমাদের দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে এটা সত্য। আশা করি অচিরেই ভুল বোঝাবুঝির অবসান হবে।’

উল্লেখ্য, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করে গণফোরাম। এতে বিএনপির ছয়জন ও গণফোরামের দু‘জন নির্বাচিত হন। শপথের ব্যাপারে গত ৫ জানুয়ারি গণফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন বলেছিলেন, শপথের ব্যাপারে তারা ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *