সামনের দিনে রফতানিতে গার্মেন্টসকে ছাড়িয়ে যাবে ইলেক্ট্রনিক পণ্য

সামনের দিনে রফতানিতে গার্মেন্টসকে ছাড়িয়ে যাবে ইলেক্ট্রনিক পণ্য

বাংলাদেশে স্মার্টফোন উৎপাদনের ঘোষণা দিয়েছে শাওমি। এজন্য ইতোমধ্যে গাজীপুরে স্মার্টফোন কারকানা স্থাপন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। প্রতিবছর বাংলাদেশের কারখানাটিতে ৩০ লাখের কাছাকাছি স্মার্টফোন তৈরির ঘোষণা দিয়েছে শাওমি। এর মধ্যমে মেইড ইন বাংলাদেশ যাত্রা শুরু করলো স্মার্টফোন নির্মাতা এই প্রতিষ্ঠান। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর বনানীর একটি হোটেলে এসব ঘোষণা দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্পখাত ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, এমপি। ভার্চুয়ালি যুক্ত হন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

প্রধানমন্ত্রী বেসরকারি শিল্পখাত ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে যেভাবে নেতৃত্ব দিয়ে সামনে এগিয়ে নিচ্ছেন, উনি যেভাবে যাচ্ছেন শাওমিও একই পথে এগুচ্ছে। তরুণ নেতৃত্ব ও শাওমির মতো তরুণ কোম্পানির ওপর আমাদের যথেষ্ট বিশ্বাস রয়েছে। এমন নতুন প্রজন্মের সব কোম্পানি ও উদ্যোক্তাই হচ্ছে বাংলাদেশের একেকটা সফলতা। আমরা বিশ্বাস করি, এই অংশীদারত্বের মাধ্যমে দেশের তরুণদের জন্য আরও সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং বৈশ্বিক মানের ইলেক্ট্রনিক্স ম্যানুফ্যাকচারিং ইকোসিস্টেম প্রতিষ্ঠা হবে।

সালমান এফ রহমান বলেন, আমরা সব সময় ইনোভেশনে জোর দিতে চাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সামনের দিনগুলোতে রপ্তানির ক্ষেত্রে গার্মেন্টস শিল্পকে ছাড়িয়ে যাবে আমাদের ইলেক্ট্রনিক শিল্প। আমিও তাই বিশ্বাস করি, আমরা চাই বাংলাদেশ প্রযুক্তি পণ্যের একটি হাব হিসেবে গড়ে উঠুক। গোটা বিশ্বে মেইড ইন বাংলাদেশ ছড়িয়ে পড়–ক। সরকারও সেজন্য উদ্যোক্তা তৈরি ও বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরি করে দিয়েছে।
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এক ভিডিও বার্তায় বলেন, আমদানিকারক দেশ থেকে স্মার্টফোন উৎপাদক দেশ হওয়ায় জন্য আমরা বহুদিন থেকেই যুদ্ধ করছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণা করেন, সেটার বাস্তবায়ন এখন দেখা যাচ্ছে। করোনার সময় সেটা আমরা টের পেয়েছি। ডিজিটাল ডিভাইসের গুরুত্ব আমরা বুঝেছি।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, স্মার্টফোন উৎপাদন কারখানা ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সহায়তা করবে এবং এর মাধ্যমে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ উদ্যোগ আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলো। আমার বিশ্বাস, এখন থেকে দেশের মানুষ একটি প্রতিযোগিতামূলক দামে, বিশ্বমানের শাওমির সর্বশেষ সব উদ্ভাবনী পণ্য উপভোগ করতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, শাওমি ডিবিজি টেকনোলজি বিডি লিমিটেডের সঙ্গে বাংলাদেশে স্মার্টফোন তৈরি করবে। ডিবিজি একটি গেøাবাল ইএমএস কোম্পানি, তাদের ম্যানুফ্যাকচারিং বিজনেস রয়েছে বিশ্বব্যাপী (চীন, ভিয়েতনাম, ভারত প্রভৃতি)। বিভিন্ন দেশের স্বনামধন্য কিছু ব্র্যান্ড ও কনজ্যুমার ইলেকট্রনিক্স পণ্য তাদের কারখানায় তৈরি হয়। কারখানাটিতে শাওমি বাংলাদেশ প্রতি বছর প্রায় ৩০ লাখ স্মাার্টফোন তৈরি করবে। প্রাথমিক অবস্থায় এই কারখানায় প্রায় এক হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে। বাংলাদেশের কারখানাটিতে রেডমি সাব-ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন দিয়ে শুরু করছে ফোন উৎপাদন, যেটি আগামী নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে বাজারে ছাড়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এরপর ধীরে ধীরে শাওমির অন্য স্মার্টফোনের পাশাপাশি পোকোর ফোনও তৈরি হবে কারখানায়।