জায়ানের মৃত্যু: সমালোচনা এড়াতে বিএনপির কাণ্ড!

নিউজ ডেস্ক: শ্রীলঙ্কার বোমা হামলায় হতাহতের ঘটনায় সারাবিশ্বে চলছে শোকের মাতম। স্তব্ধ বিশ্ববাসী।

তবে এ ঘটনা বাংলাদেশকে বিশেষভাবে নাড়া দিয়ে গেছে। কারণ, হামলায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি শিশু জায়ান চৌধুরী নিহত হয়েছে। বিভিন্ন সংগঠন শিশু জায়ানের মৃত্যুতে শোকবার্তা প্রকাশ করলেও এ নিয়ে নীরব ছিলো বিএনপি। এ নিয়ে সৃষ্ট সমালোচনা এড়াতে কিছুটা বাধ্য হয়েই ঘটনার ৪ দিন পর শোকবার্তা প্রকাশ করেছে বিএনপি। এতে সমালোচনার মাত্রাটা আরো দ্বিগুণ হয়েছে।

রাজনৈতিক মহল থেকে শুরু করে সর্বস্তরে সমালোচনার প্রেক্ষিতে বলা হচ্ছে, শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহত শিশু জায়ানের মৃত্যুতে ঘটনার ৪ দিন পর বিএনপি শোক প্রকাশ করেছে তার পরিবারের প্রতি সহমর্মিতা দেখাতে নয়, বরং কেবল রাজনৈতিক সমালোচনা এড়াতে। যা বিএনপির স্বার্থ লোভী চরিত্রের স্পষ্ট পরিস্ফুটন মাত্র।

শ্রীলঙ্কায় গত রোববার (২১ এপ্রিল) বোমা হামলায় আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী নিহত হয়। এ ঘটনায় ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে শোক প্রকাশ করে বিভিন্ন সংগঠন থেকে শুরু করে দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। কিন্তু এ নিয়ে বিএনপির মতো একটি প্রধান রাজনৈতিক দলের নীরবতা ছিলো চোখে পড়ার মতো।

সমালোচনা ওঠে, বিএনপির নেতারা খালেদা জিয়ার মুক্তি, আন্দোলন কর্মসূচি, ক্ষমতায় যাওয়ার বাসনাসহ বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ফিরিস্তি দেয় অথচ সারা বিশ্বে মানবতা যখন বিপর্যস্ত তখন তারা নীরব। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মধ্যে মতবিরোধ বা আদর্শিক বিরোধ থাকতেই পারে কিন্তু একটি শিশু রাজনৈতিক সমাচারের ঊর্ধ্বে, তাকে নিয়ে কোনো বিবৃতি না দিলেও শোকসন্তপ্ত পরিবারের পাশে দাঁড়াতেও পারতো বিএনপি।

প্রসঙ্গত, গত রোববার (২১ এপ্রিল) ইস্টার সানডের দিনে শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোর কয়েকটি চার্চ ও হোটেলে একযোগে বোমা হামলায় চালানো হয়। হামলা এখন পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ৩৫৯; আহত প্রায় ৫০০ জন। হামলার সময় কলম্বোর একটি হোটেলে থাকা শেখ ফজলুল করিম সেলিমের জামাতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স গুরুতর আহত এবং তার বড় ছেলে আট বছর বয়সী শিশু জায়ান চৌধুরী নিহত হয়। জায়ানের মরদেহ বুধবার (২৪ এপ্রিল) দুপুরে দেশে আনা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *